Category: Persons .

أبو حامد محمد بن محمد بن محمد الغزَّالي

English Abu Hāmid Muhammad ibn Muhammad ibn Muhammad al-Ghazzāli
اردو ابو حامد محمد بن محمد بن محمد غزالی
বাংলা ভাষা আবূ হামিদ মুহাম্মাদ ইবন মুহাম্মাদ ইবন মুহাম্মাদ আল-গাজ্জালী
हिन्दी अबू हामिद मुहम्मद बिन मुहम्मद बिन मुहम्मद ग़ज़्ज़ाली
తెలుగు అబూ హామిద్ ముహమ్మద్ బిన్ ముహమ్మద్ బిన్ ముహమ్మద్ అల్ గజ్జాలీ.

أبو حامد الغزَّالي

English Abu Hāmid al-Ghazzāli
اردو ابو حامد غزالی
বাংলা ভাষা আবূ হামিদ আল-গাজ্জালী
हिन्दी अबू हामिद ग़ज़्ज़ाली
తెలుగు అబూహామీద్ అల్ గజ్జాలీ

محمد بن محمد بن محمد الطوسي، أبو حامد الغزَّالي، بتشديد الزاي، ضبطه به ابن السمعاني وابن الأثير والنووي وابن خلكان وابن دقيق العيد والذهبي والسبكي والسخاوي والمرتضى الزَّبيدي، وهو المعتمد على خلافٍ فيه، ولد عام 450، وهو أصولي وفقيه شافعي، له تصانيف عديدة منها "إحياء علوم الدين" و"المستصفى في أصول الفقه" وفي الفقه: "الوجيز" و"الوسيط" و"البسيط"، خاض في الفلسفة ثم رجع عنها وردَّ عليها، وخاض بعد ذلك فيما يسمى بعلم الكلام وأتقن أصوله ومقدماته ثم رجع عنه بعد أن ظهر له فساده ومناقضاته ومجادلات أهله، وقد كان متكلمًا في الفترة التي ردَّ فيها على الفلاسفة ولُقب حينها بلقب حجة الإسلام؛ لأنه أفحمهم، ثم سلك مسلك الباطنية وأخذ بعلومهم ثم رجع عنها وأظهر بطلان عقائد الباطنية وتلاعبهم بالنصوص والأحكام، ثم سلك مسلك التصوف، قال ابن الصلاح عنه: (أبو حامد كثر القول فيه ومنه، فأما هذه الكتب -يعني كتبه المخالفة للحق- فلا يُلتفت إليها، وأما الرجل فيُسكت عنه، ويُفَوَّضُ أمره إلى الله)، وقال الذهبي: (وقد ألّف الرجل في ذمِّ الفلاسفةِ كتابَ "التهافت"، وكَشَفَ عوارَهم، ووافقهم في مواضعَ ظنًّا منه أن ذلك حقٌّ أو موافقٌ للملَّةِ، ولم يكن له علمٌ بالآثار، ولا خبرةٌ بالسنَّةِ النبويَّةِ القاضيةِ على العقلِ، وحُبِّبَ إليه إدمانُ النظرِ في كتابِ "رسائل إخوان الصفا"، وهو داءٌ عضالٌ، وجَربٌ مردٍ، وسمٌّ قتَّال، ولولا أنَّ أبا حامد مِن كبار الأذكياء، وخيار المخلصين لتلِف، فالحذار الحذار مِن هذه الكتب، واهربوا بدينكم من شُبَه الأوائل وإلا وقعتم في الحيرة)، وقال أبو بكر بن العربي: (شيخُنا أبو حامد: بَلَعَ الفلاسفةَ، وأراد أن يتقيَّأهم فما استطاع)، وقال القاضي عياض: (والشيخ أبو حامد ذو الأنباء الشنيعة، والتصانيف الفظيعة، غلا في طريقةِ التصوُّفِ، وتجرَّد لنصر مذهبهم، وصار داعيةً في ذلك، وألَّف فيه تواليفه المشهورة -أي "الإحياء"- أُخذ عليه فيها مواضعُ، وساءتْ به ظنونُ أمَّةٍ، والله أعلم بسرِّه، ونَفَذَ أمرُ السلطان عندنا وفتوى الفقهاء بإحراقها والبعد عنها، فامتُثِل لذلك)، وقال ابن الجوزي: (صنَّف أبو حامد "الإحياء"، وملأه بالأحاديثِ الباطلةِ، ولم يَعلم بطلانها، وتكلَّم على الكشف، وخرج عن قانون الفقه)، توفي عام 505.

English He is Muhammad ibn Muhammad ibn Muhammad at-Tūsi, Abu Hāmid al-Ghazzāli, with double 'z' as stated by Ibn as-Sam‘āni, Ibn al-Athīr, An-Nawawi, Ibn Khallikān, Ibn Daqīa al-‘Īd, Adh-Dhahabi, As-Subki, As-Sakhāwi, and Al-Murtada az-Zabīdi. There is a difference of opinion in this regard; however, this is the approved opinion. He was born in 450 AH. He was a Shāfi‘i and an Usūli scholar of Fiqh (specialized in studying the fundamentals of Fiqh). He authored many books like 'Ihyā’ ‘Ulūm ad-Dīn' and 'Al-Mustasfa fi Usūl al-Fiqh'. He wrote Fiqh books like 'Al-Wajīz', 'Al-Wsīt', and 'Al-Basīt'. He engaged in philosophy, but then he gave it up and refuted its claims. Then, he engaged in what is called '‘Ilm al-Kalām' (scholastic theology) and he mastered its principles and introductions, but again, he refrained from it after finding out its corruption and contradictions and its people's futile arguments. He was a Mutakallim (scholastic theologian) during the period when he rebutted the philosophers' claims and he was, thus, called 'Hujjat al-Islam' because he succeeded in confuting them. Later, he followed the Bātinyyah (esoteric) Sect and learned their sciences; but then, he renounced their beliefs and exposed their invalidity and exposed how they manipulate the Shariah texts and rulings. After that, he adopted Sufism. Ibn as-Salāh said about him: "Abu Hāmid said a lot, and a lot was said about him. As for these books - referring to his books which contradict the truth - they are not worthy of looking into; and as for the man himself, nothing should be said about him and his affairs should be entrusted to Allah." Adh-Dhahabi said: "He wrote the book of 'At-Tahāfut' in criticizing the philosophers and exposing them. He agreed with them on certain points assuming that this was right or that it complies with religion. He had no knowledge of the textual reports and no experience of the Prophetic Sunnah that refutes reason. He was addicted to reading 'Rasā’il Ikhwān as-Safa' (Epistles of the Brethren of Purity), which is an incurable evil, a fatal illness, and a deadly poison. Had it not been for his high intelligence and his ultimate sincerity, he would have gone astray. So, beware of such books and flee with your religion from the misconceptions of the past or else you may fall into the pit of confusion." Abu Bakr ibn al-‘Arabi said: "Our Shaykh Abu Hāmid had swallowed the philosophers, but when he wanted to vomit them up, he could not." Al-Qādi ‘Iyād said: "Shaykh Abu Hāmid, the one with the horrible reports and terrible writings, had exaggerated in adopting Sufism and was devoted to supporting their doctrine and became a preacher in this regard. He wrote his famous book - referring to 'Al-’Ihyā’' - on this topic and was criticized for certain points therein, and many thought ill about him, and Allah knows best about his intention. Our Sultan's command was implemented, and the scholars of Fiqh issued a Fatwa that it (his book) should be burnt and abandoned, and this is what happened." Ibn al-Jawzi said: "Abu Hāmid authored 'Al-Ihyā’' and filled it with false Hadīths, without knowing that they were false. He also talked about Kashf (inspiration on some matters of the unseen) and he trespassed the law of Fiqh." He died in 505 AH.
اردو محمد بن محمد بن محمد طوسی، ابو حامد غزَّالی۔ غزَّالی کو ابن السمعانی، ابن اثیر، نووی، ابن خلکان، ابن دقیق العید، ذہبی، سبکی، سخاوی اور مرتضی زبيدی نے زا کی تشدید کے ساتھ ضبط کیا ہے اور یہی درست بھی ہے، حالاں کہ اس سلسلے میں کچھ اختلاف بھی ہے، سنہ 450ھ میں پیدا ہوئے، اصولی اور شافعی فقیہ ہیں، انھوں نے کئی کتابیں بھی لکھی ہیں۔ جیسے "إحياء علوم الدين"، "المستصفى في أصول الفقه" فقہ میں "الوجيز"، "الوسيط" اور "البسيط" وغیرہ، پہلے فلسفہ کی باریکیوں میں الجھے اور بعد میں رجوع کر لیا اور اس کی تردید بھی کی، بعد ازاں علم کلام کی باریکیوں میں الجھے اور اس کے اصول و مقدمات کا گہرا علم حاصل کیا، لیکن جب اس کی بھی کج رویاں، داخلی اختلافات اور اس کے علم برداروں کی بحثیں سامنے آئيں تو اس سے بھی رجوع کر لیا، جن دنوں انھوں نے فلسفیوں کی تردید کی تھی اور ان کو لاجواب کر دینے کی وجہ سے ان کو حجۃ الاسلام کہا گیا تھا ان دنوں وہ متکلم تھے، پھر باطنی مسلک کے پیروکار بن گئے اور ان کے علوم حاصل کیے، لیکن اس سے بھی رجوع کر لیا باطنی مسلک کے عقائد کے بطلان کو سامنے لانے کے ساتھ ساتھ نصوص اور احکام کے ساتھ ان کے کھلواڑ کو واضح کیا، اس کے بعد تصوف کی طرف مائل ہوئے، ان کے بارے میں ابن الصلاح کہتے ہیں : "ابو حامد کے بارے میں بہت سی باتیں کہی گئی ہیں اور انھوں نے بھی بہت سی باتیں کہی ہیں۔ جہاں تک ان کتابوں (ان حق مخالف کتابوں) کی بات ہے، تو یہ قابل توجہ نہیں ہیں، رہی بات خود ان کی، تو ان کے بارے میں خاموشی اختیار کی جائے گی اور ان کے معاملے کو اللہ کے حوالے کر دیا جائے گا۔" ذہبی کہتے ہیں : "انھوں نے فلاسفہ کی مذمت میں "التھافت" نامی کتاب لکھ کر ان کا کچا چٹھا سامنے لانے کا کام کیا ہے، کچھ جگہوں پر ان کی موافقت بھی کی ہے، یہ سمجھ کر کہ یہ حق ہے یا ملت کے موافق ہے، ان کے پاس آثار کا علم نہيں تھا، سنت نبویہ پر بھی، جسے عقل پر فوقیت حاصل ہے ان کی پکڑ نہیں تھی، ان کو "رسائل اخوان الصفا" کے مطالعے سے بڑی دل چسپی تھی، جو کہ درحقیقت ایک لاعلاج بیماری اور زہر ہلاہل ہے، ابو حامد اگر بڑے ذہین و فطین اور بڑے مخلص نہ ہوتے تو ضا‏ئع ہو جاتے، لہذا ان کی ان کتابوں سے بہت زیادہ دور رہو اور اپنے دین کو اوائل کے شبہات سے بچاؤ،ورنہ ذہنی کشمکش کے شکار ہو جاؤگے۔" ابو بکر بن عربی کہتے ہیں : "ہمارے شیخ ابو حامد فلاسفہ کو نگل گئے اور اس کے بعد ان کی الٹی کرنا چاہا، لیکن کر نہيں سکے۔" جب کہ قاضی عیاض کہتے ہیں : "شیخ ابو حامد غلط سلط معلومات فراہم کرنے والے بری کتابوں کے مصنف ہیں، تصوف میں غلو سے کام لیا اور اہل تصوف کی حمایت میں ایڑی چوٹی کا زور لگایا اور اس کے داعی بن گئے، اسی کے سلسلے میں اپنی مشہور کتاب 'الاحیا' لکھی جس کے کئی مقامات پر ان کی گرفت ہوئی ہے اور جس کی وجہ سے بڑی تعداد میں لوگ ان سے بدظن ہوئے ہیں، اللہ ان کے باطن سے زیادہ واقف ہے۔ ہمارے یہاں سلطان کا حکم اور علما کا فتوی اسے جلا دینے اور اس سے دور رہنے کا آیا، جس کی تعمیل کی گئی۔" اور ابن الجوزی کہتے ہیں : "ابو حامد نے 'الاحیاء' لکھی اور ان جانے میں اسے باطل حدیثوں سے بھر دیا، اس میں انھوں نے کشف کے بارے میں گفتگو کی اور فقہ کے قانون کے دائرے سے باہر چلے گئے۔" سنہ 505ھ میں وفات پائی۔
বাংলা ভাষা মুহাম্মাদ ইবন মুহাম্মাদ ইবন মুহাম্মাদ আত-তূসী, আবূ হামিদ আল-গাজ্জালী ‘জা’ বর্ণে তাশদীদ সহকারে হবে। আর এভাবেই হরকত প্রদান করেছেন, ইবনুস সাম‘আনী, ইবনুল আছীর, নববী, ইবনু খাল্লিকান, ইবনু দাকীকুল ‘ঈদ, যাহাবী, সুবকী, সাখখাভী এবং মুর্তাজা আয-যাবিদী। আর এ ব্যাপারে মতানৈক্য থাকা সাপেক্ষে এটিই গ্রহণযোগ্য মত। তিনি ৪৫০ হিজরীতে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি একাধারে উসুল শাস্ত্রবিদ ও একজন শাফেয়ী ফকীহ, তার অসংখ্য রচনাবলী রয়েছে, যার মধ্যে অন্যতম: ‘ইহইয়ায়ে উলূমিদ্দীন’, আল-মুস্তাসফা ফী উসূলিল ফিকহ এবং ফিকহের ক্ষেত্রে: ‘আল-ওয়াজীয’, ‘আল-ওয়াসিত’ এবং ‘আল-বাসিত’। তিনি দর্শনশাস্ত্রে মনোনিবেশ করেন, তারপর তিনি দর্শন থেকে ফিরে আসেন এবং তার বিরুদ্ধে খন্ডন মূলক বই লেখেন। এবং তিনি তারপরে যাকে কালাম শাস্ত্র বলা হয়, তাতে মনোনিবেশ করেন এবং সেখানে তার মূলনীতি সমূহ এবং মাসআলার মধ্যে ব্যুৎপত্তি অর্জন করেন, তারপর তিনি সেখান থেকেও ফিরে আসেন; তার সামনে এটার অথর্বতা, অগ্রহণযোগ্যতা ও কালাম শাস্ত্রবিদদের নিজস্ব দ্বন্দ স্পষ্ট হওয়ার কারণে। এবং যখন তিনি প্রথম জীবনে দর্শন শাস্ত্রবিদদের বিরুদ্ধে উপনীত হয়েছিলেন, তখন তিনি কালামশাস্ত্রবিদ ছিলেন আর তখনই তাকে ‘হুজ্জাতুল ইসলাম’ নামে আখ্যায়িত করা হয়; কেননা তিনি তাদেরকে নির্বাক করে দিয়েছিলেন। এরপর তিনি বাতেনীদের তরীকা গ্রহণ করেন এবং এরপর তিনি সেখান থেকেও ফিরে আসেন। আর বাতেনী ফিরকার আকিদার বিভ্রান্তি তিনি স্পষ্ট করেন এবং তাদের দ্বারা কুরআন-সুন্নাহ এবং শরীয়তের বিধানসমূহের ব্যাপারে খেলা করার বিষয়টিও তুলে ধরেন। এর পরে তিনি সুফিদের পন্থা অবলম্বন করেন। ইবনুস সলাহ তার ব্যাপারে বলেন: “আবু হামিদ, তার ব্যাপারে এবং তার থেকে অনেক কথাই রয়েছে। কিন্তু তার এই সমস্ত গ্রন্থসমূহ -অর্থাৎ হকের বিপরীতে লিখিত তার গ্রন্থাবলী- সেদিকে দৃষ্টিপাত করা যাবে না। আর এই ব্যক্তি সম্পর্কে চুপ থাকতে হবে, আর তার বিষয়টি আল্লাহর কাছেই সোপর্দ করতে হবে।” যাহাবী বলেন: “এই লোকটি দর্শনশাস্ত্রকে তিরস্কার করে ‘তাহাফুত’ নামক একটি গ্রন্থ রচনা করেছিলেন। এবং তিনি তাদের দোষ-ত্রুটি প্রকাশ করে দিয়েছিলেন, তবে কিছু স্থানে তিনি তাদের সাথে একমত পোষণ করেছিলেন, এ ধারণার বশবর্তী হয়ে যে, সেটা সঠিক এবং তা হচ্ছে দীনের মুতাবিক। কিন্তু তার হাদীস শাস্ত্রে কোনো জ্ঞান ছিল না এবং বিবেকের উপর ফয়সালাকারী সুন্নাতে নববী সম্পর্কেও তার কোনো অভিজ্ঞতা ছিলনা। আর তার কাছে একটি কিতাবের মধ্যে গভীর মনযোগ দেওয়া প্রিয় হয়ে ওঠে, যার নাম: “রাসাইলু ইখওয়ানিস সফা”, আর এটি ছিল একটি গোপন রোগ সমতুল্য, অনিবারক পাঁচড়া সদৃশ এবং জীবননাশক বিষ। যদি না আবু হামিদ অত্যন্ত মেধাবী এবং মুখলিছদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ হতেন, তবে নিশ্চিত তিনি ধ্বংস হয়ে যেতেন। সুতরাং সাবধান, সাবধান, এই সমস্ত গ্রন্থ থেকে। তোমরা তোমাদের দীন (ইসলাম) নিয়ে প্রথম যুগের মানুষদের সন্দেহ থেকে পলায়ন কর; অন্যথায় তোমরা বিভ্রান্তির মধ্যে পতিত হবে।” আবু বাকর ইবনুল আরাবী বলেন: “আমাদের শায়খ আবু হামিদ: তিনি দার্শনিকদেরকে গিলে ফেলেছেন এবং তাদেরকে বমি করে উগরিয়ে দিতে চেয়েছিলেন, কিন্তু পারেননি।” কাযী আয়াদ বলেন: “আবু হামিদ ছিলেন অত্যন্ত মন্দ জ্ঞান ও তথ্যের বাহক, ভয়াবহ ত্রুটিযুক্ত গ্রন্থসমূহের লেখক। তিনি সূফীবাদ নিয়ে বাড়াবাড়ি করেন এবং তাদের মাযহাবকে সাহায্য করতে আত্মনিয়োগ করেন এবং তার দায়ী হিসেবে পরিণত হন। এবং ঐ শাস্ত্রে তিনি তার প্রসিদ্ধ গ্রন্থ রচনা করেন -তথা ইহইয়াউ উলূমিদ্দীন- এবং সেখান থেকে বেশ কিছু স্থান সমালোচিত হয়েছে, আর উম্মতের ধারণা তার ব্যাপারে খুব খারাপ হয়ে গেছে। আল্লাহই তার গোপন সংবাদের ব্যাপারে জানেন। আমাদের কাছে সুলতানের আদেশ ও ফকীহদের ফাতওয়া বাস্তবায়িত হয়েছে, আর তা হচ্ছে: সেগুলোকে পুড়িয়ে ফেলা এবং তার থেকে দূরে থাকা, সুতরাং তা কার্যকরী হয়েছে।” ইবনুল জাওযী বলেন: “আবূ হামিদ ‘ইহইয়াউ উলূমিদ্দীন’ নামক গ্রন্থ রচনা করেছেন, তিনি সেটিকে জাল এবং বানোয়াট হাদীস দ্বারা পরিপূর্ণ করেছেন, কিন্তু তিনি সেগুলোর জাল বা বানোয়াট হওয়ার ব্যাপারে জানতেন না। তিনি কাশফের ব্যাপারে আলোচনা করেছেন আর ফিকাহ শাস্ত্রের নিয়মকানুন থেকে বেরিয়ে গিয়েছেন।” তিনি ৫০৫ হিজরীতে মৃত্যুবরণ করেন।
हिन्दी मुहम्मद बिन मुहम्मद बिन मुहम्मद तूसी, अबू हामिद ग़ज़्ज़ाली। ग़ज़्ज़ाली शब्द की यही वर्तनी इब्न समआनी, इब्न असीर, नववी, इब्न-ए-ख़ल्लिकान, इब्न-ए-दक़ीक़ अल-ईद, ज़हबी, सुबकी, सख़ावी तथा मुरतज़ा ज़बीदी ने लिखी है और यही सही भी है, हालाँकि इसके बारे में कुछ मतभेद भी है। 450 हिजरी को पैदा हुए। गज़्ज़ाली एक उसूली तथा शाफ़िई फ़क़ीह हैं। उन्होंने कई किताबें लिखी हैं। जैसे "इहया उलूम अद-दीन", "अल-मुसतसफ़ा फ़ी उसूल अल-फ़िक़्ह", फ़िक़्ह में "अल-वजीज़", "अल-बसीत" और "अल-वसीत"। पहले दर्शन शास्त्र की बारीकियों में उलझे, फिर वहाँ से लौट आए और उसका खंडन किया। इसके बाद इल्म-ए-कलाम के समुद्र में गोता लगाया, इसके सिद्धांत एवं भूमिकाएँ निर्धारित कीं और फिर जब इसकी असत्यता, अंतरविरोध और इसके झंडाबरदारों की बहसें सामने आईं, तो इससे दामन छुड़ा लिया। जिन दिनों वह फ़लसफ़ियों का खंडन कर रहे थे, उन दिनों इल्म-ए-कलाम में दिलचस्पी रखे हुए थे और उसी समय उनको हुज्जत अल-इस्लाम की उपाधि दी गई थी। क्योंकि उन्होंने फ़लसफ़ियों को निरोत्तर कर दिया था। फिर बातिनियत के रास्ते पर चले और उससे संबंधि ज्ञान प्राप्त किया और फिर उससे भी किनारा कर लिया और बातिनी समुदाय के गलत अक़ीदों की असत्यता तथा क़ुरआनी आयतों और हदीसों के साथ उनके खिलवाड़ को स्पष्ट किया और उसके बाद तसव्वुफ़ के मार्ग पर चल पड़े। इब्न सलाह कहते हैं : (अबू हामिद के बारे में बहुत-सी बातें कही गई हैं और उन्होंने भी बहुत सारी बातें कही हैं। जहाँ तक उनकी इन किताबों (सत्य के विरुद्ध किताबों) की बात है, तो उनकी ओर तवज्जो नहीं दी जाएगी। रही बात इस व्यक्ति की, तो इसके बारे में कुछ कहने से गुरेज़ किया जाएगा और इसका मामला अल्लाह के हवाले कर दिया जाएगा।) ज़हबी कहते हैं : (इस व्यक्ति ने फ़लसफ़ियों के खंडन में "अत-तहाफ़ुत" नामी किताब लिखकर उनका कच्चा-चिट्ठा खोला है, तथा कुछ स्थानों में यह समझकर उनसे सहमति व्यक्त की है कि यह सही तथा इस्लाम के अनुरूप हैं। इनके पास हदीस का ज्ञान नहीं था और न ही सुन्नत-ए-नबवी की जानकारी थी, जो अक़्ल को सही दिशा देने का काम करती है। उनहोंने "रसाइल इख़वान अस-सफ़ा" नामी किताब को बड़े ध्यान से पढ़ता था, जो एक लाइलाज बीमारी तथा जानलेवा विष है। अगर अबू हामिद बड़े कुशाग्र बुद्धि वाले तथा निष्ठावान लोगों में से न होते, तो नष्ट हो जाते। अतः उनकी इन किताबों से हर हाल में सावधान रहो और अपने धर्म को इन जैसे लोगों के पैदा किए हुए संदेहों से बचाओ, वरना तुम भी संदेहों के भँवर में फँस जाओगे।) अबू बक्र इब्न अल-अरबी कहते हैं : (हमारे शैख़ अबू हामिद फ़लसफ़ियों को निगल गए और उसके बाद उनकी उलटी कर देना चाहा, लेकिन कर नहीं सके।) क़ाज़ी अयाज़ कहते हैं : (शैख़ अबू हामिद गलत-सलत मालूमात उपलब्ध कराने वाले और बुरी किताबों के लेखक हैं। तसव्वुफ़ के संबंध में बड़ी अतिशयोक्ति की, उसके बचाव में खुलकर खड़े हुए और उसके प्रचारक बन गए। तसव्वुफ़ पर अपनी प्रसिद्ध पुस्तक -यानी इहया उलूम अद-दीन- लिखी, जिसके कई स्थानों पर उनकी पकड़ हुई है। उनके बारे में बहुत-से लोगों की राय बुरी है। जबकि उनके अंदर क्या था, यह अल्लाह ही बेहतर जानता है। हमारे यहाँ बादशाह का आदेश तथा फ़क़ीहों का फ़तवा आया था कि उनकी इस किताब को जला दिया जाए और उससे दूर रहा जाए, जिसका पालन किया गया।) इब्न अल-जौज़ी कहते हैं : (अबू हामिद ने "इहया उलूम अद-दीन" लिखी और उसमें झूठी हदीसों का अंबार लगा दिया। उनको पता भी नहीं था कि यह हदीसें झूठी हैं। उन्होंने कश्फ़ के बारे में बात की और फ़िक़्ह के सिद्धांतों से बाहर निकल गए।) सन् 505 हिजरी में मृत्यु को प्राप्त हुए।
తెలుగు ముహమ్మద్ బిన్ ముహమ్మద్ బిన్ ముహమ్మద్ తూసి, అబూ హామిద్ అల్'గజ్జాలీ. ఇబ్నే సమ్'ఆనీ, ఇబ్నుల్ అసీర్, నవవి, ఇబ్ను-ఖల్లికాన్, ఇబ్నుదఖీక్ అల్'ఈద్, జహాబీ, సుబకీ, సఖావి మరియు ముర్తజా జబీదీలు 'గజ్జాలీ' అనే పదం ఒత్తు 'జ్జా'తో వ్రాశారు ఇదియేసరైనది. అయితే అందులో కొందరు భిన్నాభిప్రాయాలు కూడా వ్యక్తం చేశారు. ఆయన హిజ్రీ450వ సంవత్సరంలో జన్మించారు. గజ్జాలీ ఒక ఉసూలి, ఫఖీహ్ మరియు షాఫయీ. ఆయన చాలా పుస్తకాలు రాశారు.అందులో కొన్ని ఇవి: 'ఇహ్యావు ఉలూముద్దీన్', అల్' ముస్తస్ఫ ఫీ ఉసూలీల్ ఫిఖా' మరియు ఫిఖహ్లో 'అల్ వజీజ్' మరియు 'అల్ వసీత్'వల్ బసీత్', మొదట తత్వశాస్త్రం యొక్క సూక్ష్మ నైపుణ్యాలలో మునిగి తరువాత అక్కడ నుండి తిరిగి వచ్చి దానిని తిరస్కరించారు. తరువాత ఇల్మే కలామ్ యొక్క సముద్రంలో మునిగి, దాని సూత్రాలు మరియు పాత్రలను నిర్దారించారు. ఆపై దాని అబద్ధం, వైరుధ్యం మరియు దాని జెండావహుల చర్చలు తెరపైకి వచ్చినప్పుడు దాని నుండి విముక్తి పొందారు. అతను తత్వశాస్త్రాన్ని తిరస్కరించిన రోజుల్లో ఇల్మ్-ఎ-కలామ్ పట్ల ఆసక్తిని కలిగి ఉన్నారు మరియు అదే సమయంలో అతనికి హుజ్జతల్-ఇస్లాం అనే బిరుదు కూడా ఇవ్వబడింది. ఎందుకంటే అతను తత్వవేత్తలను జవాబు లేకుండా చేశారు.అప్పుడు అతను బాతినియత్ మార్గంలో వెళ్లి దానికి సంబంధించిన జ్ఞానాన్ని పొందారు మరియు దానిని కూడా విస్మరించారు మరియు బాతినీ సమాజంలోని తప్పుడు అఖీదాల యొక్క అబద్ధాన్ని మరియు ఖుర్ఆను ఆయతులు మరియు హదీసుల అవహేళనను స్పష్టపరిచారు. ఆ తరువాత తసవ్వుఫ్ మార్గాన్ని అనుసరించారు.ఇబ్నుసలాహ్ ఇలా చెప్పారు:(అబూ హమీద్ గురించి చాలా విషయాలు చెప్పబడ్డాయి. అతను కూడా చాలా విషయాలు చెప్పాడు. అతని సత్యానికి వ్యతిరేకంగా ఉన్న పుస్తకాలకు సంబంధించినంత వరకు వాటిని పట్టించుకోవడం జరుగదు. ఈ వ్యక్తి విషయానికొస్తే, అతని గురించి ఏ అభిప్రాయం వ్యక్తం చేయబడదు అతని వ్యవహారం అల్లాహ్'కు అప్పగించబడుతుంది.)ఇమాం జహబీ ఇలా అన్నారు: (ఈ వ్యక్తి తత్వశాస్త్రాన్ని ఖండిస్తూ "అత్-తహాఫుత్" అనే పుస్తకాన్ని వ్రాసి వారి తప్పుడు చిట్టాలను విప్పాడు మరియు కొన్ని చోట్ల విషయాలు సరైనవని మరియు ఇస్లాంకు అనుగుణంగా ఉందని భావించి వారితో ఏకీభవించాడు. అతనికి జ్ఞానానికి సరైన దిశానిర్దేశం చేసే హదీసుల విజ్ఞానం లేదా సున్నతే-నబవి జ్ఞానం లేదు, అతను చాలా శ్రద్ధతో "రసాఇల్ ఇఖ్వాన్ అస్-సఫా" అనే పుస్తకాన్ని చదివాడు, ఇది చికిత్సలేని వ్యాధి, ప్రాణాంతక వ్యాధి. విషం. అయితే అబూహమీద్ అత్యంత తెలివైన మరియు నిజాయితీ గల వ్యక్తులలో లేకపోతే అతను నాశనం చేయబడి ఉండేవాడు. కావున అతని ఈ పుస్తకాల పట్ల ఎట్టి పరిస్థితుల్లోనూ జాగ్రత్తగా ఉండండి మరియు అతనిలాంటి వ్యక్తులు సృష్టించే సందేహాల నుండి మీ ధర్మాన్నికాపాడుకోండి. లేకుంటే మీరు కూడా సందేహాల సుడిగుండంలో చిక్కుకుంటారు.)అబూబకర్ ఇబ్నుల్ అరబీ ఇలా చెప్పారు:(మా షేఖ్ అబూ హమీద్ తత్వశాస్త్రాన్ని మింగేశాడు అయితే తరువాత వాటిని వాంతి చేయడానికి ప్రయత్నించాడు, కానీ సాద్యపడలేదు.) ఖాజీ అయాజ్ ఇలా అన్నారు:(షేక్ అబూ హమీద్ తప్పుడు జ్ఞానాన్ని ప్రచారం చేసేవాడు మరియు చెడు పుస్తకాలను రచించాడు. తసవ్వుఫ్ గురించి చాలా అతిశయోక్తి ప్రదర్శించాడు, దాని రక్షణలో బహిరంగంగా నిలబడి భోదకుడు అయ్యాడు. తసవ్వుఫ్ పై అతని ప్రసిద్ధ పుస్తకం అంటే అల్ ఇహ్యావు దీన్'వ్రాశాడు, అందులో చాలా చోట్ల పట్టుబడ్డాడు, చాలా మందికి అతని పై చెడు అభిప్రాయం ఉంది, అతనిలో ఏమున్నది అల్లాహ్కు బాగా తెలుసు. అతని ఈ పుస్తకాన్ని తగలబెట్టమని, దానికి దూరంగా ఉండాలని ఫత్వా వచ్చింది.దాని ప్రకారం అనుసరించబడింది.) ఇబ్నుల్ జౌజీ ఇలా చెప్పారు:(అబూ హమీద్ "ఇహ్యాఉ ఉలూమి ద్దీన్" అని పుస్తకాన్ని వ్రాసాడు అందులో కుప్పలుతెప్పలుగా తప్పుడు హదీసులు ప్రస్తావించాడు. ఈ హదీసులు అబద్ధమని కూడా అతనికి తెలియదు. అతను కష్ఫ్ గురించి మాట్లాడారు అయితే ఫిఖహ్ సూత్రాల నుండి తొలగిపోయారు.) హిజ్రీ 505వ సంవత్సరంలో మరణించాడు.

الدر الثمين في أسماء المصنفين (ص 83)، تاريخ الإسلام (11/62)، سير أعلام النبلاء (19/ 322، 335، 343)، طبقات الشافعية الكبرى (6/191)، فتح المغيث (3/ 15)، ضبط الأعلام (ص144-150)، الأعلام للزركلي (7/22).